Templates by BIGtheme NET
Home / খেলাধুলা / রোনালদিনহোকে মেসির আবেগী উপহার

রোনালদিনহোকে মেসির আবেগী উপহার

ছোট্ট একটা উপহার। তাতে ছোট্ট দুটি বাক্য। অথচ কত আবেগই না উপচে পড়ছে তাতে! মনে করিয়ে দিচ্ছে কত অতীত স্মৃতি! অবশ্য উপহার দাতা ও গ্রহীতার সম্পর্কটা যেখানে এমন আবেগময়, অসাধারণ বন্ধুত্বপূর্ণ, তাতে আবেগ উপচে পড়াটাই তো স্বাভাবিক।

উপহার দাতা লিওনেল মেসি, গ্রহীতা রোনালদিনহো। সাবেক বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডকে নিজের সই করা একটা জার্সি উপহার দিয়েছেন বর্তমান বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড। যাতে লিখেছেন—‘বন্ধু রোনির জন্য, হৃদয়ের সবটুকু ভালোবাসা রইল। অনেক শুভকামনা।’ এই ‘ছোট্ট’ উপহারই অনেক আবেগের পুনর্জন্ম ঘটিয়েছে।

অবশ্য পুনর্জন্ম ঘটানোরই তো কথা। মেসি-রোনির সম্পর্কটা তো আর পাঁচ-দশটা খেলোয়াড়ি সম্পর্কের মতো নয়। বন্ধুত্ব ছাপিয়েও এ যেন অনেকটা বড় ভাই-ছোট ভাই সম্পর্কের মতো, অনেকটা গুরু-ভাবশিষ্যের অনুভবের মতো। ১৬ বছর বয়সে প্রথম যেদিন বার্সেলোনার ড্রেসিং রুমে পা রেখেছিলেন লাজুক লিওনেল মেসি, সেদিন তাঁকে সবার আগে উষ্ণ আলিঙ্গনে অভিবাদন জানিয়েছিলেন তো রোনালদিনহো-ই। সেসময় দলের সবচেয়ে প্রভাবশালী খেলোয়াড়টির স্নেহের পরশ বোলানো হাত সব সময়ই ছিল মেসির ওপর।

এই বন্ধুত্বের প্রতীকই যেন হয়ে আছে বার্সেলোনার পক্ষে মেসির প্রথম গোলটা। প্রকৃতিই হয়তো চাইছিল, মেসির প্রথম গোল যাঁর পাস থেকে আসবে, সেটি রোনি-ই হবেন। ২০০৪ থেকে ২০০৮-এই চার বছরে কৈশোর পেরোনো সেই প্রতিভাবান মেসির আজকের বিশ্বসেরা হয়ে ওঠার পেছনে সবচেয়ে বড় প্রভাবও রোনালদিনহোর। তিনি নিজেই হয়তো বার্সার দশ নম্বর জার্সির যোগ্য উত্তরসূরি করে গড়ে তুলছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডকে।তরুণ মেসিকে সব সময় আগলে রেখেছেন রোনি। ছবি: সংগৃহীত

মেসিও তাঁর গড়ে ওঠার পেছনে রোনির অবদান সব সময় সবিনয়ে স্বীকার করে এসেছেন। সাত বছর আগে রোনালদিনহো বার্সা ছেড়ে গেলেও দুজনের মধ্যে বন্ধুত্বে এতটুকু চিড় ধরেনি। যার সর্বশেষ প্রমাণ হয়ে রইল এই উপহার।

গত নভেম্বরে বার্নাব্যুতে হওয়া যাওয়া এল ক্লাসিকো ছিল ‘রোনির বার্নাব্যু জয়ে’র দশক পূর্তি। ২০০৫ সালে বার্নাব্যুতে রিয়াল মাদ্রিদকে হাসিমুখে নাচিয়ে ছাড়ার পরও রিয়াল সমর্থকেরাই ম্যাচ শেষে উঠে দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানিয়েছিল রোনালদিনহোকে। সেই এল ক্লাসিকোর দশ বছর পূর্তি উপলক্ষে ব্রাজিলের সাবেক এই ফরোয়ার্ডের সাক্ষাৎকার নিতে বার্সেলোনা টিভির একটা দল কিছুদিন আগে যাচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্রের মায়ামিতে। বর্তমান ক্লাবহীন সময় কাটানো রোনি সেখানেই ছিলেন। সুযোগ বুঝে ওই দলের হাতেই নিজের অটোগ্রাফ দেওয়া জার্সিটা তুলে দেন মেসি।

বন্ধুর কাছ থেকে পুরস্কার পেয়ে খুশি রোনিও। উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে সাবেক বার্সা ‘নাম্বার টেন’ ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘আমার বন্ধু, সতীর্থ ও অসাধারণ খেলোয়াড় মেসির কাছ থেকে একটা সই করা জার্সি পেয়েছি। আলিঙ্গন তোমাকে, ভাই!’মেসি জার্সি সই করছেন— এমন একটা ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টেও দিয়েছেন রোনালদিনহো। টুইটারেও মেসির কাছ থেকে জার্সি পাওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন সবাইকে। সেখানে লিখেছেন, ‘দেখো, আমার বন্ধু লিওনেল মেসি ওর দেওয়া শার্টে কী লিখেছে! আমার ফেসবুকেও ওর জার্সি সই করা ছবিটা দেওয়া আছে। অসাধারণ!’
রোনির উচ্ছ্বাসটা নিশ্চয়ই ছুঁয়ে গেছে মেসিকেও। তথ্যসূত্র: এফসি বার্সেলোনা, মার্কা।

About admin

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful