Templates by BIGtheme NET
Home / রাজনীতি / তদবিরে অতিষ্ঠ অর্থ প্রতিমন্ত্রী!

তদবিরে অতিষ্ঠ অর্থ প্রতিমন্ত্রী!

তদবিরে অতিষ্ঠ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘তদবিরের কারণে বড় বিপাকে আছি। আমার কাছে যত মানুষ আসেন, তাঁদের ৯০ ভাগই তদবির নিয়ে আসেন। আর এই তদবিরের ৮৯ ভাগই আনফেয়ার। ঘরে-বাইরে সর্বত্রই তদবিরের আধিক্য। তদবির করতে না চাইলে অনেকেই বলেন, তাঁরা দলের জন্য কাজ করেছেন, দেশ স্বাধীন করেছেন ইত্যাদি, ইত্যাদি।’

গতকাল সোমবার সচিবালয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তদবির নিয়ে নিজের অসহায়ত্ব এভাবেই প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী। তবে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নির্বাহীদের তদবিরে নতজানু না হয়ে নৈতিকতার ভিত্তিতে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

তদবিরকারীদের নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘দেখা গেছে কোনো ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) বা চেয়ারম্যানের ফোন নম্বর আমার কাছে নেই। তদবিরকারীরাই সেই নম্বর নিয়ে আসেন। তাঁরা আর কিছু না জানুক, ডিও শব্দটি জানেন। তাঁরা এসে বলেন, দুই টন গমের জন্য একটি ডিও লেটার দেন।’ তিনি বলেন, “এখন দেশের গ্রামেগঞ্জেও ‘ডিও’ একটি অতি পরিচিত শব্দ। কৃষকও ডিও বোঝেন। ডিও দেওয়ার জন্য তাঁরা কম্পিউটারে আমার প্যাড ছাপিয়ে সেখানে বিভিন্ন ধরনের সুপারিশ নিজেরাই লিখে নিয়ে আসেন।”

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে মূলধন ঘাটতি পোষাতে অর্থ দেওয়ার সমালোচনা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রতিবছর রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে তিন থেকে চার হাজার কোটি টাকা করে মূলধন জোগান দেওয়া হচ্ছে। এগুলো জনগণের টাকা। প্রতিবছর এভাবে অর্থ দিলে জনগণের কাছে কথা শুনতে হয়। বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তির আলোকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো ভালো পারফরমেন্স দেখাতে পারলে তাদের জন্য এক ধরনের স্বীকৃতি দেওয়া যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচটি বিশেষায়িত ব্যাংক ও দুটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্ম সম্পাদনের লক্ষ্য নির্ধারণে অগ্রগতি নিয়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এগুলো হলো বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, কর্মসংস্থান ব্যাংক, আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক, প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) ও বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন।

সরকারের পক্ষে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড. এম আসলাম আলম এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পক্ষে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্বাক্ষর করেন।

ড. এম আসলাম আলম বলেন, পরীক্ষামূলকভাবে গত অর্থবছর থেকে কর্ম সম্পাদন চুক্তি চালু করা হয়েছে। সরকারের তরফ থেকে প্রতিষ্ঠানগুলোকে কোনো কিছুই চাপিয়ে দেওয়া হয়নি। দুই পক্ষের আলোচনার মাধ্যমেই লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবুল কাশেমসহ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

About admin

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful