Templates by BIGtheme NET
Home / খেলাধুলা / টি ২০ আক্রমণাত্মক খেলা রক্ষণের জায়গা নেই

টি ২০ আক্রমণাত্মক খেলা রক্ষণের জায়গা নেই

ওয়ানডে থেকে এবার টি ২০ ফরম্যাটে। আধিপত্য বিস্তার করেই ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। কিন্তু টি ২০ ক্রিকেটে দু’দলের মধ্যে কোনো পার্থক্য দেখতে পাচ্ছেন না টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা। বৃহস্পতিবার সোনারগাঁও হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন, ‘টি ২০ এমন খেলা যে, আগে থেকে অনুমানের সুযোগ নেই। সব সময় আক্রমণে থাকতে হয়, রক্ষণের জায়গা নেই। দু’একটা উইকেট পড়ে গেলে বা যে কোনো কিছু হলে, বড় দল-ছোট দলের পার্থক্য কমে আসে। তবে সেটা নেতিবাচক ভাবনা। ইতিবাচকভাবে যদি ভাবি, আমরা ভালো খেলছি, সেটা যদি ধরে রাখতে পারি, পরিকল্পনা যেমন থাকে সেসব যদি বাস্তবায়ন করতে পারি সমস্যা হবে না।’

ওয়ানডের তুলনায় বাংলাদেশ টি ২০ ক্রিকেটে এখনও সফল হতে পারেনি। এখন পর্যন্ত ৪৪ ম্যাচ খেলে বাংলাদেশের জয় মাত্র ১২টিতে। নিজেদের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করে মাশরাফি বলেন, ‘এটা সত্যি যে, টি ২০তে আমরা এখনও অতটা সফল নই। আর এটাও সত্যি যে তিনটি ওয়ানডে জেতার পর আমাদের আÍবিশ্বাস ভালো থাকবে, আমরা মাঠে চেষ্টা করব সেই আÍবিশ্বাস ধরে রাখতে। তাহলে ফল আমাদের পক্ষে থাকবে।’ তিনি বলেন, ‘এই সিরিজের পর বিপিএল আছে। এরপর এশিয়া কাপ। এর মধ্যে অনুশীলন হবে। সেরা কম্বিনেশন ঠিক করার চেষ্টা করছি আমরা। সেদিক থেকে বললে প্রস্তুতি এখন থেকেই শুরু করতে হবে।’

মাশরাফি বলেন, দলের প্রধান লক্ষ্য সেরা কম্বিনেশন ঠিক করা। তবে এই সিরিজ থেকে একটা কম্বিনেশন বের করা যাচ্ছে, এটাও টিম ম্যানেজমেন্টের মাথায় রয়েছে। ইনজুরির কারণে তাসকিন আহমেদ ও রুবেল হোসেন দলের বাইরে। টি ২০ সিরিজেও বিশ্রাম নেয়া হচ্ছে না মাশরাফির। ডেঙ্গজ্বর থেকে ফিরে টানা খেলায় তার ওপর চাপ পড়ে যাচ্ছে। সাকিব দলে না থাকায় বিশ্রাম হচ্ছে না মাশরাফির। তিনি বলেন, ‘সাকিব থাকলে শেষ ওয়ানডেতেও হয়তো আমি বিশ্রাম নিতে পারতাম। সাকিব যেহেতু নেই, আমাকে খেলতে হয়েছে। এখন প্রথম টি ২০ আমি অবশ্যই খেলছি। শারীরিক অবস্থা সামলে নিচ্ছি। সাকিব থাকলে কাজটা সহজ হতো অবশ্যই।’

ওয়ানডে সিরিজে রান না পাওয়া লিটন কুমার দাসকে নিয়ে কথা উঠছে। তবে অধিনায়ক শুধু লিটনকে নিয়ে নয়, যে কোনো খেলোয়াড়কেই পর্যাপ্ত সুযোগ দেয়ার পক্ষে। সর্বোচ্চ যাচাই না করে কারও বিষয়ে নেতিবাচক সিদ্ধান্ত নেয়া ঠিক নয় বলে মনে করেন তিনি। বাংলাদেশে এমন কালচার শুরু হলে ভালো হবে বলে মনে করেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘সামনে বিশ্বকাপ। মূল ফোকাস ওটাই। এশিয়া কাপও। ইমরুল যেভাবে রান করছে, বাংলাদেশ দলের জন্য দারুণ ইতিবাচক। সৌম্য যেভাবে খেলছিল, ওর জায়গাটা পাকাই ছিল। ইমরুলও জানে, সৌম্য ফিরলে জায়গা ফিরে পাবে সে। তারপরও আমি বলব না যে সুযোগ নেই। সবারই সুযোগ আছে। আমাদের প্রায় পাঁচজন টপঅর্ডারে আছে। অনেক কিছু চিন্তা করতে হবে।’

About admin

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful