Templates by BIGtheme NET
Home / স্বাস্থ্য / চিনে নিন ক্যান্সার প্রতিরোধী খাবারগুলো

চিনে নিন ক্যান্সার প্রতিরোধী খাবারগুলো

বর্তমানে ক্যান্সারে মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে হু হু করে। প্রতিদিনই আমরা নতুন কোন ঝুঁকির কথা শুনি বা এই মারাত্মক রোগটি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কী করা বন্ধ করতে হবে সেই বিষয়ে শুনে থাকি। কিন্তু ভালো খবর হচ্ছে, সঠিক খাদ্য খেলে ক্যান্সার থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। নিউ ইয়র্কের এর Suffern এর নিবন্ধিত পুষ্টিবিদ Sharon Saka বলেন, ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার, শাকসবজি, ফল এবং সেইসাথে ফলের রস বা ১০০% ফলের জুস ক্যান্সারের ঝুঁকির ক্ষেত্রে অনেক বড় পরিবর্তন আনতে পারে। ক্যান্সার প্রতিরোধে কাজ করে যে খাবার গুলো তা হল :

১। টমেটো

টমেটো এক প্রকারের ফল যেহেতু এতে বীজ আছে। কিন্তু তাঁদের মসলাদার সুগন্ধের জন্য সবজি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। টমেটো ফল না সবজি সেটা কোন বিষয় না। টমেটো হচ্ছে “নিউট্রিশনাল পাওয়ারহাউজ” যা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে। টমেটোতে লাইকোপেন নামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা হৃদরোগ প্রতিরোধেও সাহায্য করে। টমেটোতে ভিটামিন এ, সি, এবং ই থাকে যা কিনা ক্যান্সার বান্ধব মৌলের শত্রু।     

২। তরমুজ

তরমুজের এক টুকরাতে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, প্রতিদিনের চাহিদার ৮০% ভিটামিন সি, ৩০% ভিটামিন এ ও বিটা ক্যারোটিন থাকে। তরমুজেও লাইকোপেন থাকে যা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে। বর্তমান এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ফল ও শাকসবজি ফুসফুস, মুখের, খাদ্যনালীর এবং কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করে।

৩। বাদাম

হৃদপিণ্ডের সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় অসম্পৃক্ত ফ্যাট থাকে বাদামে। যদি আপনি ক্যান্সারের সাথে সম্পর্কিত ক্ষুধাহীনতায় ভুগে থাকেন অথবা ওজন কমাতে চান তাহলে বাদাম সবচেয়ে ভাল, কারণ অল্প পরিমাণ বাদাম আপনাকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি প্রদানে সক্ষম। বাদামে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট থাকার পাশাপাশি পটাশিয়াম, আয়রন, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, ফোলেট, সেলেনিয়াম এবং ভিটামিন ই থাকে। এছাড়াও কিছু প্রোটিন ও ফাইবার ও থাকে। আখরোট প্রদাহ রোধী ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিডের চমৎকার উৎস। কিছু গবেষণায় জানা গেছে যে, সাপ্লিমেন্টের চেয়ে খাদ্য থেকে এই পুষ্টি উপাদানটি শোষণ করা ভালো।

৪। সবুজ শাক

সবুজ শাক ফাইবার, ফোলেট, ক্যারোটিনয়েড ও ফ্লেভনয়েডের চমৎকার উৎস। এই যৌগ গুলোর বেশীর ভাগেরই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কার্যকারিতা আছে যা কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। Lutein and zeaxanthin নামক ক্যারোটিনয়েড চোখের প্রতিরক্ষার কাজ করে এবং মেকুলার ডিজেনারেশন এর ঝুঁকি কমায় যার কারণে অন্ধতার সমস্যা হতে পারে।

৫। জাম জাতীয় ফল

স্ট্রবেরি, ব্লু বেরি এবং ব্ল্যাক বেরি হচ্ছে সত্যিকারের সুপার ফুড। এই সকল ফলে চিনি কম থাকে ও পুষ্টিতে সমৃদ্ধ থাকে। তাঁদের স্পন্দনশীল রঙের অর্থ এরা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরা, এর পাশাপাশি ফ্লেভনয়েড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন ও থাকে। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হৃদপিণ্ডের সুরক্ষা প্রদান করে এবং এর ক্যান্সার বিরোধী প্রভাব আছে। এছাড়াও শরীরের নিজস্ব অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এনজাইমকে উদ্দীপিত করে। জাম জাতীয় ফল খেলে ডায়াবেটিস, ক্যান্সার এবং cognitive decline এর ঝুঁকি হ্রাস করে এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে।

এছাড়াও মাশরুম, পেঁয়াজ, বীজ, দই, ডার্ক চকলেট, বাঁধাকপি, ফুলকপি, ব্রকোলি ইত্যাদির ও ক্যান্সার বিরোধী কার্যকারিতা আছে।

About admin

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful