Templates by BIGtheme NET
Home / রাজনীতি / খালেদা জিয়া বিদেশে বসে নতুন ষড়যন্ত্র করছেন

খালেদা জিয়া বিদেশে বসে নতুন ষড়যন্ত্র করছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খালেদা জিয়া দেশে ব্যর্থ হয়ে বিদেশে বসে নতুন ষড়যন্ত্র করছেন। বিদেশে বসে দেশে খুন করাচ্ছেন। বিদেশী নাগরিক হত্যা করে আতংক ছড়াচ্ছেন খালেদা জিয়া। তিনি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ইঙ্গিত করে বলেছেন, এটা তার নতুন কৌশল। বিদেশে বসে এখন দেশে একটা অস্থিতিশীল অবস্থা সৃষ্টির পরিকল্পনা নিয়েছেন। নির্বাচন বানচালের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে বিএনপি তাদের আন্দোলনের কৌশল বদলাচ্ছেন বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার দুপুরে গণভবনে রংপুর, গাজীপুর, গোপালগঞ্জ, চট্টগ্রাম ও বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নির্বাচিত আইনজীবী নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক, সাবেক আইনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক আবদুল মতিন খসরু, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ, অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার প্রমুখ। লন্ডনে অবস্থানরত খালেদা জিয়াকে উদ্দেশে করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এখন বিদেশে বসে নতুন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন। সেই ষড়যন্ত্র কি? বিদেশে থেকে ওদিকে লবিস্ট রেখেছেন, ইউরোপ, ইউকে, ইউএসএ বিভিন্ন জায়গায় জামায়াত এবং বিএনপি মিলে নানা ধরনের অপপ্রচার এবং একটা প্যানিক ছড়ানো। সরকারপ্রধান বলেন, বিদেশে বসে বাংলাদেশে বিদেশীরা যারা আছেন তাদের হত্যা করে বিদেশীদের মধ্যে একটা আতংক সৃষ্টি করে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করা। উনি দেশে থেকে দেশের মানুষ পুড়িয়ে আর বিদেশে থেকে দেশে থাকা বিদেশী আছে তাদের মেরে ওনার আন্দোলন। তিনি বলেন, উনি দেশে থেকে দেশের মানুষ হত্যা করেছেন। এখন আবার বিদেশে গেছেন। এখন নাকি আন্দোলনের কৌশল পাল্টেছেন। সেই কৌশল কি তিনি ব্যবহার করছেন?

দেশবাসীকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, যখনই দেশের উন্নতি হয়, দেশ যখন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সম্মানজনক অবস্থানে যায় তখন বিএনপি-জামায়াত জোট তাদের একটা অন্তপীড়া শুরু হয়ে যায়। দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এরা উঠেপড়ে লাগে। তখন তারা খুন করা, নানান ধ্বংসাত্মক কাজ করাসহ যা যা করা দরকার তাই করে। এজন্য জনগণকে সচেতন হতে হবে।

চলতি বছরের শুরুতে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের ব্যর্থতার কথা তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) বুঝেছেন তার আন্দোলনে জনগণ সাড়া দেয়নি। তার ডাকে দেশের মানুষ সাড়া দেয়নি। তিনি ঢাকাবাসীকে ডেকে দেখেছেন তারাও তার দিকে ফিরে তাকায়নি। জ্বালাও-পোড়াও করে সরকার উৎখাত সেটাও তিনি পারেননি। সবদিকে ব্যর্থ হয়ে আদালতেও হাজির হতে হয়েছিল, নিজের বাড়িতেও ফিরে গিয়েছিলেন। সহিংসতার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ৯২টা দিন বিএনপি নেত্রী তার পার্টি অফিসে বসে ৬৪ জন মানুষ নিয়ে তিনি ঘোষণা করলেন, সরকার উৎখাত না করে ঘরে ফিরবেন না। তিনি সরকার উৎখাত করবেন দেশের নিরীহ মানুষ হত্যা করে? এমন বীভৎস দৃশ্য বোধহয় মানুষ আর কখনও দেখেনি। জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। শিশু-নারী কেউ তাদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি। উনি অফিসে বসে থেকে মানুষ হত্যা করলেন। গাড়ি পোড়ানো, লঞ্চ পোড়ানো, বাস-ট্রেন পোড়ানো, জ্বালাও-পোড়াও, মানুষ খুন করা, বোমা মারা, পেট্রলবোমা মারা এই ছিল তার রাজনীতি। এটাই তার আন্দোলন। ২০০১-পরবর্তী বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, তারা সারা দেশে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছিল। খুন করা ছাড়া তাদের কোনো কাজ ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ সময় ধরে আইনজীবী নেতাদের বিভিন্ন সমস্যা, দাবি-দাওয়ার কথা শোনেন। তাদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়ে বলেন, আপনাদের সমস্যা আমি উপলব্ধি করি। দেখব কীভাবে সমস্যা সমাধান করতে পারি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম থেকে নির্বাচিত বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন বাবুল, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মুজিবুল হক চৌধুরী, রংপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক, বরিশাল আইনজীবী সমিতির সভাপতি আনিসউদ্দীন শহীদ ও সাধারণ সম্পাদক কাজী মোহাম্মদ মনিরুল হাসান, গোপালগঞ্জ আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী খান এবং গাজীপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজমতউল্লাহ খান ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইব্রাহিম।

About admin

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful